শখের বসে শরীরে ট্যাটু? বাড়াচ্ছে মৃত্যুর আশঙ্কা! এই ভয়ঙ্কর রোগ দেখা দিচ্ছে!

Editor Desk

Follow
Whatsapp Channel

Tattoo Health Risk: পরনের শাড়ি, ঢিলে করে খোঁপা সাজ পোশাকের থেকেও বেশি নজর কাটছিল খোপার আড়ালে থাকা “আর কে” ট্যাটু। এই দিন যেন নিঃশব্দে দীপিকা রনবীর কাপুরের সাথে তার সম্পর্কের কথা ঘোষণা করে দিয়েছিলেন। সেই ট্যাটু যেমন হৈচৈ ফেলেছিল তেমনি বলিউডের হাত ধরে পাকাপাকি জায়গা করে নিয়েছিল ট্যাটু।

সেই সময় থেকে এখনো পর্যন্ত ট্যাটুর জনপ্রিয়তা কিন্তু একফোঁটা কমেনি। বরং ক্রমশই বেড়ে চলেছে ট্যাটু করার হিড়িক। ‌আসলে ট্যাটু কিন্তু প্রাচীন পদ্ধতি। কিন্তু গত কয়েক বছরে এলিট ফ্যাশন রাজ্যে পাকা আসন করে নিয়েছে এই ট্যাটু। ফ্যাশনের অন্যতম অঙ্গ হিসেবে জায়গা করে নিচ্ছে এটি। কেউ নিজের হাতে প্রেমিক প্রেমিকার নাম লিখছেন কেউ হাতে আঁকছেন সিম্বল। কিন্তু নয়া প্রজন্মের এই নতুন আকর্ষণ ঘিরেই ভয় পাচ্ছেন ডাক্তার। কেন জানেন!

ট্যাটু থেকে মারণ রোগ!

ডাক্তাররা বলছেন ট্যাটুর কালি থেকে কিন্তু মারণ রোগ হতে পারে। ট্যাটুর রঙের ক্ষতিকারক রাসায়নিক প্রভাবে আপনার ক্যান্সার হতে পারে। তার প্রেক্ষিতেই কিন্তু কার্সিনোজেনিক অ্যারোমেটিক অ্যামাইন, পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন, হাইড্রোকার্বন, ধাতু ও মিথানলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

বিশেষ করে চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিত্য নতুন গজিয়ে উঠছে ট্যাটু শপ। অনেকেই স্বল্পমূল্যের লোভে যে কোন জায়গা থেকে করে নিচ্ছেন ট্যাটু। আর সমস্যা এখানেই। এক চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ জানাচ্ছেন ট্যাটু করার সময় যে কালি ব্যবহৃত হয় তা ভালো না হলে ত্বকের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

এছাড়াও ট্যাটু আঁকার সময় যে সূচ ব্যবহার করা হয় তা নিরাপদ হওয়াও বাঞ্ছনীয়। একজনের সূচ অন্যজনকে ব্যবহার করা হলে HIV এর মতোন মারণ রোগ হতে পারে। দেখা গেছে যাদের ট্যাটু আছে তাদের লিম্ফোমা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাচ্ছে। ট্যাটুর পাশাপাশি ট্যাটু রিমুভ করার পদ্ধতি ও যথেষ্ট ক্ষতিকর।

ইউরোপে নিষিদ্ধ ট্যাটু রঙ

এছাড়া ট্যাটু করার জন্য যে যে রং গুলি বিশেষভাবে ব্যবহৃত করা হয় তার মধ্যে মারাত্মক লাল রংটি। এই রঙে এমন কিছু ক্ষতিকর রাসায়নিক থাকে যার জন্য ইউরোপের দেশগুলিতে অবিলম্বে এই রঙ নিষিদ্ধ করা দাবি উঠেছে।

About Author

Leave a Comment